প্রধানমন্ত্রীকে ইমরানের ফোন, সাহায্যের আবেদন!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আজ বুধবার বিকেলে তাকে ফোন করেন ইমরান।

এশিয়ার ইমার্জিং টাইগার বাংলাদেশের সহানুভূতি পেতে এবং মুসলিম ভ্রাতৃত্বের দোহাই দিয়ে আর্থিক ও খাদ্য সহযোগিতা পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ধর্না দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

উল্লেখ্য, দারিদ্র্যের কষাঘাতে জর্জরিত পাকিস্তানের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই শোচনীয়। বেশিরভাগ নাগরিকের জন্য দুই বেলার খাবার জোগাড় করাই কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতিমধ্যে পাকিস্তানের দুঃস্থ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান “যে যা পারেন” কর্মসূচির আওতায় দেশ বিদেশে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে মাত্র ছয় লাখ আটত্রিশ হাজার রুপি সংগ্রহ করতে সক্ষম হন। অন্যদিকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে অপ্রতিরোধ্য গতিতে। দেশজুড়ে চলছে চোখধাঁধানো উন্নয়ন কর্মকাণ্ড। সামরিক শক্তিতে এগারো ধাপ এগিয়ে বিশ্বের ৪৫ তম দেশে পরিণত হয়েছে। তাই বাংলাদেশের সহানুভূতি না থাকলে পাকিস্তানের অস্তিত্ব সংকটে পড়বে এটা উপলব্ধি করছে পাকিস্তান।

এর আগে সৌদি আরবের কাছে আর্থিক সহায়তা চাইলে পাকিস্তানের জন্য সেবা দেয়ার শর্ত যোগ করা হয়। প্রিন্স সালমান সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন যে, সৌদি নেতৃত্বাধীন মিডল ইস্টের দেশগুলো এশিয়ার সকল সমীকরণে শেখ হাসিনার সুপারিশ সর্বাগ্রে বিবেচনা করে। তাই অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক ক্ষেত্রে সহায়তা পাওয়ার আশায় ইমরান খান বহুদিন থেকে শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করছে।

জানা গেছে, দুই রাষ্ট্রনায়কের মধ্যে কুশলাদি বিনিময় হয়েছে। শেখ হাসিনার চোখের বর্তমান অবস্থার খোঁজখবর নিয়েছেন ইমরান খান। প্রধানমন্ত্রী সফল নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন মাইলফলক বলে উল্লেখ করে ধন্যবাদ জানান ইমরান খান।

উল্লেখ্য, জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যোগদান শেষে গতকালই দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বের নেতৃবৃন্দের কাছে শেখ হাসিনার সুদৃঢ় অবস্থান ও দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রাপ্তি দেখে হতবাক হয়ে যান ইমরান খান।
এছাড়া বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত পাইক্কা জনগণ ইমরানের তোয়াজে জ্বলে পুড়ে ছারখার হয়ে যাচ্ছে বলেও ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।