ভালো হোক, মন্দ হোক রাজনীতিবিদরাই দেশ চালাবে বিদেশী শক্তি না

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলারের গুলশানের বাসায় গেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সরকারকে সরাতে বরাবরই বিএনপি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক শক্তির থেকে সাহায্য চেয়েছে। পাকিস্তানের আইএসাই, চীন সহ বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দাদের সাথে নিয়ে নির্বাচনে জয় লাভের চেস্টা করে। 
এসব প্রচেস্টা ব্যর্থ হওয়ার এবার যুক্তরাস্ট্রের রাস্ট্রদুতের সাথে বারবার অভিযোগ ও বাংলাদেশের উপর অবরোধ আরোপের কথা বলেন। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছেও যুক্তরাস্ট্রকে অনুরোধের অন্য বারবার বিভিন্ন লভিস্ট এর সহায়তা নেয় বিএনপি।
এস কে সিনহা অবশ্য নির্বাচনের আগেই ধোঁয়াশা পরিস্কার করে। উনি এক ব্রিফিং এ সহসাই বলে দিয়েছলেন “আওয়ামীলীগ সরকার আবার আসলে যুক্তরাস্ট্র বাংলাদেশের উপর অবরোধ আরোপ করতে পারে”।  আর অবরোধ আরোপের জন্য বরাবরই যুক্তরাস্ট্রের দ্বারস্থ হচ্ছে বিএনপি।
কিন্তু প্রশ্ন হলো, সত্যি যদি বিএনপি, সিনহাদের কথায় বাংলাদেশের উপর অবরোধ দিবে যুক্তরাস্ট্র? যুক্তরাস্ট্র বরাবরের মতই জামাত আর তারেকের সম্পৃক্ততা আশা করেনা বিএনপির সাথে। অনেক আগেই বিএনপিকে “ব্ল্যাক লিস্ট” এ যোগ করেছিল যুক্তরাস্ট্র।

শুক্রবার (৪ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় মির্জা ফখরুল ইসলাম, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও বিএনপির নির্বাহী সদস্য তাবিথ আউয়াল মার্কিন রাষ্ট্রদূতের বাসায় যান।

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হওয়ার কথা। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে মিডিয়ায় কিছু জানানো হয়নি। 

এই বৈঠকের পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনজি তিরিংকের সঙ্গে বৈঠক করবেন মির্জা ফখরুল। 

জানতে চাইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, এটা অনানুষ্ঠানিক বৈঠক।

Leave a Reply