জাফর ইকবাল স্যারের রাস্ট্র নিয়ে লেখা পাপ, ড. কামাল-জামাতের  ঐক্য রাজনৈতিক স্বাধীনতা?

ড. কামাল হোসেন জামাতে ইসলামীর সাথে ঐক্য করতে পারবেন এটা উনার রাজনৈতিক স্বাধীনতা। ডেভিড বার্গম্যান যুদ্ধাপরাধীদের আইনী সহায়তা দিতে পারবেন এটা উনার পেশাভিত্তিক স্বাধীনতা। ড. আসিফ নজরুল খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইতে পারবেন এটা উনার বাক স্বাধীনতা। ড. শাহদীন মালিক বিএনপি’র নির্বাচনী ইশতেহার লিখে দিতে পারবেন এটা উনার নাগরিক স্বাধীনতা। বামপন্থী বিশ্লেষক ফরহাদ মঝহার, নুরুল কবির, গোলাম মর্তুজা, মহিউদ্দিন আহমদ ডানপন্থী হয়ে গিয়ে মৌলবাদী রাজনীতির মুখপাত্র হতে পারবেন এটা উনাদের বিশেষ স্বাধীনতা। কিন্তু ড. মুহাম্মাদ জাফর ইকবাল স্যারের এ জাতীয় কোন স্বাধীনতা নেই!

মুহাম্মাদ জাফর ইকবাল স্যারের রাজনৈতিক কোন পক্ষ থাকতে পারে না। রাষ্ট্র নিয়ে উনি লিখতে পারেন না। রাজনীতি নিয়ে উনার মতামত প্রদান করা নিষেধ। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি উনার ইতিবাচক অবস্থান প্রকাশ করা পাপ। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাইতে গেলে উনি নাস্তিক। পেট্রোল বোমাবাজদের বিপক্ষে লিখলে উনি সরকারের দলাল। রাষ্ট্রের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরলে উনি আ’লীগের বুদ্ধিজীবী।

মুহাম্মাদ জাফর ইকবাল স্যারের মতো মহান অসাম্প্রদায়িক চিন্তার মানুষদেরকে সাম্প্রদায়িক জামাতে ইসলামী দলের সমর্থকরা সহজাত ঘৃণা করবে। ১৩/১৪ দফা দাবীর সমর্থকেরা স্বভাববশত গালাগালি করবে। অসহিষ্ণু মৌলবাদী গোষ্ঠী উনার প্রাণনাশের হুমকি দেবে৷ জাতীয়তাবাদী দলের সমর্থকেরা রাজনৈতিক কারণে উনার তীব্র বিষেদাগার করবে। কিন্তু আপনি মুক্তচিন্তক হয়ে মৌলবাদীদের ভাষায় স্যারকে এ্যাটাক করে ঠিক নিজকে কোন পর্যায়ে নামাতে চান?

 দু ‘ এক লাইন লতাপাতার কবিতা লিখে, দু ‘ চার লাইন বিপ্লবী বাণী প্রসব করে, ছয় লাইন শ্রেণী সংগ্রামের তত্ত্ব আওড়ালেই জ্ঞানী, চিন্তাশীল আর উদারমনা হওয়া যায় না। উদারমনা হতে হলে উদারনৈতিকতাবাদী দর্শন লাগে। উন্নত মানসিকতা লাগে। যা আপনাদের মতো নড়বড়ে বিদ্যের আর গড়বড়ে বুদ্ধিবাজদের নেই।

লেখক:অনির্বাণ আরিফ

Leave a Reply