নোয়াখালীর সেই গৃহবধু ধর্ষণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত গ্রেফতার ৩

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে আলোচিত সেই গৃহবধু গণধর্ষণ ঘটনার ৩ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার প্রধান আসামী মো: সোহেলকে বুধবার দুপুরে কুমিল্লার বরুরার মহেশপুর একটি ইটভাটা থেকে গ্রেফতার করেছে নোয়াখালী ডিবি পুলিশ। এরআগে মঙ্গলবার রাতে লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলা থেকে মামলার তিন নম্বর আসামী স্বপনকে(৩৫) গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সে চরজুবলী ইউনিয়নের মধ্যম বাগ্যা গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে। গত সোমবার মামলার ছয় নম্বর আসামী বাসুকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ নিয়ে এজাহারভুক্ত তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এদিকে বুধবার দুপুরে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের ৩ সদস্য একটি টীম ও বিকেলে চট্টগ্রাম পুলিশের ডিআইজি ঘটনাস্থল ও হাসপাতাল পরিদর্শন করেন।
এঘটনার মূল হোতা আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক মেম্বার রুহুল আমিনকে আসামী না করায় বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।
ওই গৃহবধূর স্বামী জানান, রোববার দুপুরের দিকে তার স্ত্রী স্থানীয় ভোটকেন্দ্র চরজুবলীর ১৪নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দিতে যান। তিনি ভোট দিয়ে ফেরার পথে স্থানীয় রুহুল আমিন নামে এক ব্যক্তি তাকে অনুসরণ করে এবং উত্ত্যক্ত করে। তার স্ত্রী এর প্রতিবাদ জানিয়ে দ্রুত বাড়ি ফিরে আসেন। এ অবস্থায় রুহুল আমিন ও তার লোকজন স্ত্রীর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। 

ঐ দিন রাত ১২ টার দিকে তার বাড়ীতে কয়েকজন এসে বলে আমরা পুলিশ দরজা খুলেন। গৃহবধুর স্বামী দরজা খুলে দিলে সন্ত্রাসী মোশারেফ পিতা তোফায়েল ওরফে তোফা, সালাউদ্দিন পিতা আলমগীর, সোহেল পিতা ইসমাইল, হেঞ্জু মাঝি পিতা চাঁন মিয়া, বেচু পিতা আবুল কাশেম, জসীম, সোহেল (২) পিতা আবুল কালাম, আবু, স্বপন পিতা আবদুল মান্নান, আনোয়ার পিতা ইউসুফ মাঝি, বাদশা আলম পিতা আহম্মদ উল্ল্যাহ, হানিফ পিতা ইসমাইল ওরফে বাগন আলী, সর্ব সাং মধ্যম বাগ্যা, ৪ নং ওয়ার্ড চরজুবলি ইউনিয়ন, আমির হোসেন পিতা নুর হক সাং পশ্চিম চর জব্বরসহ ১৫/১৬ জন সন্ত্রাসী গৃহবধুর স্বামী ও তার ছেলে মেয়েকে বেঁধে ফেলে। গৃহবধুকে আগ্নেয়াস্ত্রের মুখে জোরপূর্বক ঘরের বাহিরে নিয়ে যায় এবং সকলে মিলে জোরপূর্বক ধর্ষণ ও বেদম মারধর করে।এসময় গৃহবধুর স্বামী ও সন্তানদের মারধর করে সন্ত্রাসীরা।
এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা গৃহবধুর গলা কেটে হত্যার পরিকল্পনা করলে তিনি সন্ত্রাসীদের হাত পা ধরে কান্নাকাটি করে জীবন ভিক্ষা চান। ফলে সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা না করেই ভোর ৫টার দিকে পুকুর ঘাটে ফেলে যায়।

পরে সকালে তার স্বামী প্রতিবেশীদের সহায়তায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিতে গেলে স্থানীয় সন্ত্রাসী রহুল আমিন মেম্বার তাদের হুমকি দিয়ে বলেন, যদি ধর্ষণের ঘটনা সাংবাদিকরা বা অন্য কেউ জানে তবে পরিবাররের সবাইকে মেরে ফেলা হবে।
পরে স্থানীয় গ্রামবাসীর সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

Leave a Reply