আরেকটা বিচার বহির্ভূত হত্যা হয়ে উঠুক সুবিচারের প্রতীক

আমি জানি না, সদ্য বিজয়ী স্থানীয় এমপি সুবর্ণ চরের ধর্ষণের ঘটনাটিতে কী ভূমিকা রাখছেন, কী ভূমিকা রাখছে স্থানীয় প্রশাসন!

সারা দেশের মানুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনীয়তা দেখিয়ে সুশাসন প্রাপ্তির প্রত্যাশায় আওয়ামী লীগকে নির্বাচনে ভূমিধ্বস বিজয়ী করেছে। মানুষ আওয়ামী লীগের দিকে তাকিয়ে আছে। এই ঘটনার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ জনগণের আস্থার যায়গাটিকে আরও শক্তিশালী ও স্থায়ী করতে পারে। নতুবা ২০০১ এর নির্বাচন পরবর্তী পূর্ণিমা শীলের ঘটনার সাথে এই ঘটনার কোনো পার্থক্য থাকে না।

ধর্ষককে ক্রস ফায়ারে দিলে জনগণ অখুশি হবে বলে মনে হয় না। আরেকটা বিচার বহির্ভূত হত্যা হয়ে উঠুক সুবিচারের প্রতীক। আওয়ামী লীগের জন্য বর্তমান প্রাতিষ্ঠানিক বিচারিক প্রক্রিয়ার যথাযথ অনুসরণও এই ঘটনার পাবলিক পারসেপশন স্বপক্ষে রাখার জন্য যথেষ্ট হবে বলে মনে হয় না। সুতরাং ক্রস ফায়ারই ভালো।

লেখক: নাজমুল হাসান

লেখক, নোভেলিস্ট, ব্লগার, রিসার্চার, কনসাল্টটেন্ট। 

Leave a Reply