প্রতাপগঞ্জ ও চন্দ্রগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে একই সূচিতে ভর্তি পরীক্ষা, শিক্ষার্থীরা ভীত ও অভিভাবকদের সংশয়

এক অঞ্চলে অবস্থিত দুইটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় ও চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় দুইটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয় হলেও ফলাফল ও মেধা ভিত্তিক শিক্ষার্থীদের দিক থেকে প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ই এগিয়ে। জেলায় প্রথম স্থান ও বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম সারির মেধা তালিকায় থাকে প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের গড় ফলাফল। অন্যদিকে চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ফলাফলও অভিভাবক ও শিক্ষকদের সন্তোষযোগ্য।
কিন্তু এবার ভর্তি পরীক্ষার তারিখ নিয়ে ঘটেছে অসন্তোষজনক কিছু। সর্বপ্রথম প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় তাদের ভর্তির তারিখ ২৮ নভেম্বর ধার্য্য করে। চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় ধার্য্য করে ২৯ নভেম্বর। কিন্তু অনিবার্য কারন দেখিয়ে চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় সেটিকে ২৮ নভেম্বর স্থানান্তর করে। একই তারিখ পড়ায় প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় তাদের ভর্তি পরিক্ষা ২৯ নভেম্বর স্থানান্তর করে বিজ্ঞপ্তি দেয়। কিন্তু তারপরই আবার চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় অনিবার্য কারন দেখিয়ে নতুন তারিখ দেয় ২৯ নভেম্বর।

বিদ্যালয় গুলোর সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মূলত মেধাবী শিক্ষার্থীদের টানতে বিদ্যালয়টি একই সময়ে পরিক্ষা ধার্য্য করতে চায়। তাদের অভিমতে প্রতাপগঞ্জ থেকে ঝরে পড়ারাই চন্দ্রগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে ভর্তি হয়। তারা এই পদ্ধতি খন্ডন করতে চায়। অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, শিশুরা এমন পরিক্ষার তারিখ পরিবর্তনে অনেক মানষিক চাপের মুখে আছে। কোন বিদ্যালয়ের পরীক্ষায় অংশ নিবে তা নিয়েও সংশয়ে আছেন অভিভাবকরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক অভিভাবক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবং বিষয়টির একটি সমাধান চেয়েছেন।

Leave a Reply