Sun. Dec 15th, 2019

Crack News

নিরপেক্ষ নয় স্বাধীনতার স্বপক্ষে

নৌকার বিরোধীতা করা মানেই খন্দকার মোশতাকের কলংকিত রক্তে নিজের হাত রঞ্জিত করা- মুহাম্মদ ইউসুফ খাঁন।

সৌদীআরব প্রতিনিধি : ৩০ আগস্ট- বৃহস্পতিবার স্হানীয় সময় রাত ১০ ঘটিকায় বঙ্গবন্ধু পরিষদ – চট্টগ্রাম রিয়াদ শাখার উদ্যোগে ১৫ ও ২১ আগস্ট জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুসহ স্বপরিবারে নিহতদের স্মরনে শোক সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনটির সভাপতি আলহাজ্ব লোকমান হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক এস্কান্দার শিকদারের পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রিয়াদ মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মুহাম্মদ ইউসুফ খাঁন। প্রধান বক্তা ছিলেন রিয়াদ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মুহাম্মদ ইউসুফ। বক্তৃতা করেন যথাক্রমে ঃ বঙ্গবন্ধু পরিষদ- চট্টগ্রামের সহ-সভাপতি, আক্তার হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের রিয়াদ মহানগর সহ- সভাপতি মাজহারুল ইসলাম পলাশ, রিয়াদ যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক এম হাসান চৌধুরী, প্রবাসী কোম্পানীগন্জ যুবলীগের সভাপতি নিজাম উদ্দীন জন্টু, রিয়াদ যুবলীগের যুগ্ন সম্পাদক রাশেদ চৌধুরী, রিয়াদ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম জাকেরুল ইসলাম, রিয়াদ মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাযলগঠনিক সম্পাদক মার্শাল টিটু, রিয়াদ যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ মামুন, যুবলীগ নেতা সোহেল হোসেন তালুকদার, যুবনেতা নিজাম উদ্দীন, রিয়াদ যুবলীগ নেতা এম মফিজুর রহমান, যুবলীগ নেতা জসীম উদ্দীন তালুকদারসহ অনেকে। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মুহাম্মদ ইউসুফ খাঁন বলেন, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও বাঙ্গালী জাতিকে নিশ্চিহ্ন করতেই ১৫ ও ২১ আগস্ট হত্যাকান্ড। তিনি বলেন, বাঙ্গালী জাতি সত্বাকে হত্যা করতে চেয়েছিল পাক – মার্কিন ও দেশীয় ষড়যন্ত্রকারীরা। ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছিল একটি জাতির জনকের নাম। কিন্তু তারা বুঝতে পারিনি বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। তিনি বলেন, দেশে – বিদেশে সেই চক্রান্তের ধারাবাহিকতা থেমে নেই। আগস্ট মাসে বাঙ্গালী জাতি যখন পিতাহারার শোকে শোকাহত তখন খালেদা পালন করে ভূয়া জম্মদিন আর তাঁর কূলাঙ্গার সন্তান খুনী তারেক আনন্দে উৎসবে মেতে উঠে। তিনি বলেন, দেশী বিদেশী সকল ষড়যন্ত্রের দাঁত ভাঁঙ্গা জবাব হবে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য একাদশ সংসদ নির্বাচনে দেশরত্ন শেখ হাসিনার মনোনিত প্রার্থীদের নৌকা প্রতিকে ভোট দেয়া – এর ব্যত্ত্বয় যেনো না ঘটে। দলীয় কোন্দলে নৌকা প্রতীকের পরাজয় হলে তা হবে আত্নঘাতের শামিল। মনে রাখতে হবে নৌকার বিরোধিতা মানেই খন্দকার মোশতাকের কলংকিত রক্ত নিজের হাতে রন্জিত করা। এটি কোনভাবেই হতে দেয়া যাবে না। তিনি বলেন, পাওয়া না পাওয়ার সব বেদনা ভূলতে হবে সংগঠনের স্বার্থে – হাজার হাজার নেতাকর্মীদের জীবন বাঁচানোর তাগিদে। এখন থেকে এ শপথ নিয়েই নির্বাচনী ভোট যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে নেতাকর্মীদের উদাত্ত্ব আহ্বান জানান মুহাম্মদ ইউসুফ খাঁন। আলোচনা সভা শেষে ূোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন নিজাম উদ্দীন জন্টু। দোয়া মাহফিলের পরে উপস্হিত সকলের মাঝে জেয়াফতের তবরুক বিতরন করা হয়।।